আজ ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২১শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সময় : রাত ৪:২০

বার : বুধবার

ঋতু : হেমন্তকাল

ইউপি নির্বাচন নিয়ে জনগণের আলোচনা সমালোচনা শুরু,শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে অধিকাংশ জনপ্রতিনিধি গন বিপাকে

 

রিতেষ কুমার বৈষ্ণব ( হবিগঞ্জ )

করোনাভাইরাস মাহামারীর কারণে থমকে গেছে বিশ্ব। বন্যা এবং করোনা ভাইরাস মহামারী দুইয়ের প্রভাব একসাথে পড়েছে বাংলাদেশে।

তবে পরিস্থিতি তেমন উন্নতি না হলেও কিছুটা স্বাভাবিক বলেই মনে করছেন অনেকেই। আগামী ২০২১ সালের মার্চ মাসের শেষের দিকে ইউপি নির্বাচন শুরু করার বিধান রয়েছে। ইউপি নির্বাচন শেষ করতে হবে জুন মাসের মধ্যে।

বাংলা দেশে ৪ হাজার ৫৭১টি ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছে। ২০১৬ সালের ২২ মার্চ থেকে শুরু করে কয়েক ধাপে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন শেষ হয়েছিল ইউপি নির্বাচন ।

বিধান অনুযায়ী ইউনিয়ন পরিষদের মেয়াদ শেষ হওয়ার ১৮০ দিনের মধ্যে সম্পন্ন করতে হবে নির্বাচন । সেই ধারাবাহিকতা অনুযায়ী আগামী ২০২১ সালের মার্চ থেকে ইউপি নির্বাচন শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন উপজেলার নির্বাচন অফিসে নির্বাচন কমিশন থেকে আগামী ইউপি নির্বাচনের প্রস্তুতির বিষয়ে বার্তা প্রদান করা হচ্ছে বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

জেলা নির্বাচন অফিস থেকে ইতিমধ্যে উপজেলা নির্বাচন অফিসে এ বিষয়ে বেশ কিছু দিক নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে, চিঠিতে কি উল্লেখ রয়েছে তা বিস্তারিত এখনো জানা যায়নি।

এদিকে করোনাকালীন সময়ে আগামী ইউপি নির্বাচনে অনেক জনপ্রতিনিধির জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াবে আশংকা করছেন সাধারণ জনগন।

করোনাকালীন সময়ে অনেক জনপ্রতিনিধি জনগণের খোঁজ নিবেন দূরের কথা বাড়ির বাহির পর্যন্ত হননি । স্থানীয় ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড বাসী অনেক জনপ্রতিনিধির কাছ থেকে সাহায্য পাবেন দূরের কথা তাদের দেখাও পাননি।

এ নিয়ে বিভিন্ন উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নবাসীর মনে ক্ষোভও রয়েছে। এই ক্ষোভকে কাজে লাগাতে ইতোমধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা জনগনের সাথে যোগাযোগও বাড়িয়ে দিয়েছেন।

তবে করোনাকালীন সময়ে ইউপি নির্বাচনের পরিধি তথা নতুন দিক নির্দেশনা কি হবে তা নিয়েও চলছে নানা হিসেব নিকাষ।

হিসাব মতে, আগামী বছরের মার্চ মাসে যেসব ইউনিয়ন পরিষদের ৫ বছর মেয়াদ শেষ হবে সেই সব ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে এই বছরের সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে আগামী বছরের মার্চের তৃতীয় সপ্তাহের মধ্যে।

আর যেসব ইউনিয়ন পরিষদের মেয়াদ আগামী বছরের জুনের প্রথম দিকেই শেষ হবে, সেসব ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন শেষ করতে হবে এ বছরের ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে আগামী বছরের মে মাসের মধ্যে।

অপরদিকে, ইউপি ও জেলা পরিষদসহ স্থানীয় সরকারের আইন নিয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায়ে নেতৃবৃন্দের মধ্যে আলোচনা চলছে বলেও খবর পাওয়া গিয়েছে ।

সেই আলোচনায় আইনে কিছু জটিলতা রয়েছে বলে তারা ঐক্যমতে পৌছেছেন।

তবে আইন অনুযায়ী যদি ইউনিয়ন পরিষদ,উপজেলায় সঠিক সময়ে নির্বাচন দেয়া না যায় তাহলে ইউপি ও উপজেলায় প্রশাসক অথবা বিকল্প কিছু করার বিষয়টিও আলোচনায় রয়েছে।ইউপি নির্বাচন নিয়ে এখন থেকেই জনগণের আলোচনা সমালোচনা শুরু।। শিক্ষা গত যোগ্যতার বিষয় টি নিয়ে অধিকাংশ জনপ্রতিনিধি গন বিপাকে ।।

দেশে কোভিড-১৯র উপস্থিতি যেহেতু বিদ্যমান রয়েছে সেক্ষেত্রে আগামী ২/৩ মাসের মধ্যে অবস্থার পরিবর্তন না হলে ইউপি ও উপজেলা নির্বাচনে কিছুটা পরিবর্তন হবে বলেও নিশ্চিত করেছেন একটি সূত্র।

শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন সূত্র বিভিন্ন মতামত প্রকাশ করছে এ নিয়ে সঠিক কোন সিদ্ধান্ত না পাওয়ায় অধিকাংশ জনপ্রতিনিধি গন পড়ে গিয়েছেন বিপাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category