আজ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সময় : রাত ৯:৩৩

বার : শনিবার

ঋতু : শরৎকাল

বরিশালের বানারীপাড়া পৌরভবনের করোনা যোদ্ধা মেয়র সুভাষ চন্দ্র শীল আজ নিজেই করোনা আক্রান্ত।।

জাকির হোসেন, বরিশাল জেলা প্রতিনিধি ॥
বরিশালের বানারীপাড়া পৌরসভার মেয়র এ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র শীল যিনি মৃত্যুকে পরোয়া না করে মৃত্যু ও ভয়কে জয় করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া রোগীদের খোজ খবর নিয়েছেন। যিনি সর্বদা করোনা মোকাবেলায় সার্বক্ষনিক জনগনের পাশে থেকেছেন, সেই তিনিই আজ করোনা আক্রান্ত। গত রবিবার হঠাৎ করে তিনি জ্বর ও মাথা ব্যথায় আক্রান্ত হন। ওই দিন তার নমুনা সংগ্রহ করে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালের আরটি পিসিআর ল্যাবে পাঠানোর পরে আজ মঙ্গলবার তার রিপোর্ট করোনা পজিটিভ আসে। তিনি তার কাউন্সিলরদের সাথে নিয়ে সর্বদা করোনা প্রতিরোধে সর্বত্র বিচরন করেছেন। তাদেরকে সাথে নিয়ে করোনা রোগীদের বাড়ি লকডাউন করা, কর্মহীন হত দরিদ্র মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া ও সচেতন করা সহ নানা ভাবে এলাকাবাসীর পাশে দাঁড়িয়েছেন। লকডাউন ও হোম কোয়ারেন্টাইন শুরু হলে ২৪ মার্চ থেকে তিনি তার বরিশাল শহরের বাসায় স্ত্রী ও সন্তান রেখে একা বানারীপাড়া পৌরভবনে বসবাস শুরু করেন। এখানে থেকে তিনি পৌরবাসীর সার্বক্ষিন খোঁজখবর রাখতেন। এই ‘মানবতার ফেরিওয়ালাখ্যাত’ মেয়র এ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র শীল প্রাণঘাতি করোনাকালে এলাকাবাসীর পাশে থাকতে পৌর ভবনে ঘরবসতি বানিয়েছিলেন। দেশের মানুষ করোনাভাইরাসে প্রথম সংক্রমিত হওয়ার পরে করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে এলাকাবাসীকে সচেতন করতে দিচ্ছেন নানা দিক নির্দেশনা। এছাড়া সরকারী বরাদ্দ সঠিকভাবে বিলি বন্টনের জন্য আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক, পৌরসভার কাউন্সিলর ও কর্মকর্তাদের সমন্বিত মতামত নিয়ে তালিকা প্রণয়ন করছেন। বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক ও বানারীপাড়া পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র শীল সর্বদা বলতেন দুর্যোগ মুহুর্তে মানুষ শুধু ত্রাণই নয়, জন প্রতিনিধিদেরও কাছে পেলে পরিস্থিতি মোকাবেলায় সাহস ও অনুপ্রেরণা পায়। তিনি
এমন ও করেছেন লোক লজ্জার ভয়তে যারা ক্ষুদার্থ থেকে ও কাউকে কিছু না বলে গৃহে বন্ধী অবস্থায় রয়েছেন তাদের খোজ খবর নিয়ে রাতের অন্ধকারে খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিয়েছেন ঐ সকল ব্যক্তিদের দরজায়। মহা দূর্যোগ মুহুর্তে এলাকাবাসীর পাশে সার্বক্ষনিক থাকার মানসে এব দ্রুত যাতে সবার কাছাকাছি থাকা যায়, প্রয়োজনে মুহূর্তের মধ্য প্রয়োজনে সবার কাছে পৌছে যাওয়া যায় তাই তিনি পৌর ভবনে এই ‘ঘরবসতি’ গড়ে তুলেছিলেন । করোনা ভয় না করে জনগনের পাশে থাকা এ্যাভোকেট সুভাষ চন্দ্র শীল বলেন দেশ ও জনকল্যাণের উদ্দেশ্যেই আমার রাজনীতিতে আসা এবং আমৃত্যু এ মানবসেবার ব্রতি নিয়েই কাজ করে যাবো। এদিকে বিপদসংকুল মুহূর্তে মেয়রকে ‘মানবতার ফেরিওয়ালা’ রূপে সর্বদা কাছে পেয়ে পৌরবাসী অনুপ্রাণিত। তার পরিবার তার সুস্থতার জন্য সকলের কাছে দোয়া প্রার্থনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category