শিরোনাম
ছাতকে বন্যার্তদের মাঝে যুবলীগ নেতা সাহাব উদ্দীনের ২য় ধাপে ত্রান বিতরন হলি আর্টিজান হামলার ৬ বছর;হয়নি মামলার নিষ্পত্তি। বিশিষ্ট শিল্পপতি জনাব আবু উল রশীদ এর পক্ষথেকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ করা হয় লোভ-হিংসা ও সংকির্ণ মনোভাবের ঊর্ধ্বে ওঠে মানবতার কল্যাণে কাজ করে যেতে হবে ——-সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভাণ্ডারী মাধবপুরে কৃষ্ণপুরের ব্রিজটি না হওয়াতে বিকল্প কাঠের সেতু তৈরী করে যানচলাচলে উপযোগী করছেন এলাকাবাসী জগন্নাথপুরে যুক্তরাজ্য প্রবাসী আজাদ মিয়া ফরুকের পরিবারের পক্ষ থেকে ত্রান বিতরণ মৌলভীবাজার সমিতি সিলেট এর ত্রান ও নগদ অর্থ বিতরন বৃষ্টির মধ্যেও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন ইউ.কে প্রবাসী আলাউদ্দিনের পরিবার শাল্লা প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ। ‘ভারত বাংলাদেশের কল্যাণ চায় না’-অধ্যক্ষ ইউনুস আহমেদ।
শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১০:৩৭ পূর্বাহ্ন
Notice :
Wellcome to our website...

তাড়াইলের হিজলজানিতে পর্যটকদের উপছে পরা ভীর

Coder Boss / ২৯৬ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৮ আগস্ট, ২০২০

আল-মামুন খান, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার পূর্ব জাওয়ার মিনি কক্সবাজার হিসেবে খ্যাত হিজলজানিতে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শত শত পর্যটকদের আগমন ঘটছে। জমে উঠেছে এই অঘোষিত পর্যটন কেন্দ্রটি। ডুবু ডুবু ভাসমান রাস্তার উপর কোথাও হাটু পানি, কোথাও কোমর পানিতে পর্যটকরা আনন্দে হৈ হুল্লুর, উল্লাস করছে।
পূর্ব দিকে ইটনা, পশ্চিম-দক্ষিনে তাড়াইল, উত্তরে নেত্রকোনার হাওড়ের অংশ মিলে এক অভূতপূর্ব জলরাশি হিজলজানিতে সৃষ্টি হয়েছে এক স্বর্গরাজ্য। এখানে নেই কোনো রেস্ট হাউজ, নেই পয়ঃনিস্কাশনের সু-ব্যবস্থা তবু দলে দলে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসছে শত শত পর্যটক। তবে পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস্থা না থাকলেও হিজলজানির প্রবেশ মূখে রয়েছে কিছু বাড়ি-ঘর। এসব বাড়ি ঘরের মানুষ পর্যটকদের বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করে থাকে।
প্রতিদিন বেলা ৩টা থেকে পর্যটকের আগমন ঘটে এবং সন্ধ্যা পর্যন্ত তারা হিজলজানিতে অবস্থান করে।
একজন পর্যটক জানান, আমরা প্রতি বছর হিজলজানি আসি। কারণ জায়গাটি অনেক নিরাপদ। এলাকার লোকজনও ভালো।
একজন দোকানদার জানান, বেশি পানি হওয়ার কারণে কয়েক দিন আগে পর্যটক কম ছিল। এখন অনেক লোক আসছে। দোকানেও বিক্রি বাড়ছে।
এলাকাবাসীর দাবি, হিজলজানির সিজনাল এই জলরাশি দেখতে আসা পর্যটকদের জন্য একটি গণশৌচাগার এবং একটি রেস্ট হাউজ করা জরুরি প্রয়োজন। তাহলে পর্যটকের আগমন আরও বাড়বে। এলাকার মানুষেরও আয় রোজকারের ব্যবস্থা হবে।

বার্তা প্রেরক-
আল-মামুন খান
কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি।
তারিখঃ২৮/০৮/২০২০
০১৭১৩-৫০৮০৯৮


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Registration Form

[user_registration_form id=”154″]

পুরাতন সংবাদ দেখুন

বিভাগের খবর দেখুন