শিরোনাম
ছাতকে বন্যার্তদের মাঝে যুবলীগ নেতা সাহাব উদ্দীনের ২য় ধাপে ত্রান বিতরন হলি আর্টিজান হামলার ৬ বছর;হয়নি মামলার নিষ্পত্তি। বিশিষ্ট শিল্পপতি জনাব আবু উল রশীদ এর পক্ষথেকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ করা হয় লোভ-হিংসা ও সংকির্ণ মনোভাবের ঊর্ধ্বে ওঠে মানবতার কল্যাণে কাজ করে যেতে হবে ——-সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভাণ্ডারী মাধবপুরে কৃষ্ণপুরের ব্রিজটি না হওয়াতে বিকল্প কাঠের সেতু তৈরী করে যানচলাচলে উপযোগী করছেন এলাকাবাসী জগন্নাথপুরে যুক্তরাজ্য প্রবাসী আজাদ মিয়া ফরুকের পরিবারের পক্ষ থেকে ত্রান বিতরণ মৌলভীবাজার সমিতি সিলেট এর ত্রান ও নগদ অর্থ বিতরন বৃষ্টির মধ্যেও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন ইউ.কে প্রবাসী আলাউদ্দিনের পরিবার শাল্লা প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ। ‘ভারত বাংলাদেশের কল্যাণ চায় না’-অধ্যক্ষ ইউনুস আহমেদ।
শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১১:৪২ পূর্বাহ্ন
Notice :
Wellcome to our website...

বৃটিশ আমলের রেল স্টেশন পুন:রায় চালু হওয়ার প্রক্রিয়ায় আছে সিলেটের সাটিয়াজুরী রেল-স্টেশন।

Coder Boss / ১৭৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৬ অক্টোবর, ২০২০

 

চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ-

( মঙ্গলবার ৬ অক্টোবর ) দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্হায়ী কমিটির সদস্য গাজী মোহাম্মদ শাহনওয়াজ এমপি’র প্রচেষ্টায় অবশেষে বাহুবল উপজেলার সীমান্তবর্তী ঢাকা-সিলেট রুটের ব্রিটিশ আমলে প্রতিষ্টিত সাটিয়াজুরী রেলস্টেশনটি চালু করার প্রক্রিয়াধীন হচ্ছে। স্টেশনটি চালু করতে ইতোমধ্যে ডিও লেটার প্রদান করা হয়েছে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, স্টেশনটি চালু করার জন্য রেলকর্তৃপক্ষের সাথে একাধিকবার বৈঠক করেছি। দ্রুততম সময়ের মধ্যে স্টেশনটি চালু করার আশ্বাস প্রদান করেছে রেলকর্তৃপক্ষ। আমার প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। আশা করছি শীঘ্রই চালু হবে সাটিয়াজুরী রেলস্টেশন।বৃটিশ আমলের রেল স্টেশন পুন:রায় চালু হওয়ার প্রক্রিয়ায় আছে সিলেটের সাটিয়াজুরী রেল-স্টেশন।

জানা যায়, আখাউড়া-সিলেট সেকশনের সাটিয়াজুরী রেল স্টেশনটি ১৯৯৮ সালে বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। এতে এলাকার মানুষ আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়ে। এমন কি ওই সময় ঢাকা-সিলেট-চট্টগ্রাম রেল যোগাযোগ অবরোধ করে রাখে বিক্ষুদ্ধ জনতা। আন্দোলনের মুখে সরকার স্টেশনটি বন্ধের সিদ্ধান্ত স্থগিত করলেও পরের বছর ১৯৯৯ সালে স্টেশনটি সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করে দেয়। ফলে ওই এলাকার ৫০/৬০ টি গ্রামের হাজার হাজার মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থায় চরম দুর্ভোগ নেমে আসে। এই স্হানে রেলগাড়ী থামলে এলাকাবাসীর খুবই উপকার হবে।

এলাকাবাসী জানান, ব্রিটিশ আমলে এ রেলস্টেশনটি চালু হয়। সে সময় একাধিক ট্রেন থামত। পরে ধীরে ধীরে এ স্টেশনে ট্রেনের সংখ্যা কমতে থাকে। একসময় স্টেশনটি বন্ধ করে দেয় সরকার।
এতে এ রেলস্টেশন একটি পরিত্যক্ত রেলস্টেশনে পরিণত হয়।
তাছাড়া এক যুগেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ থাকার ফলে নষ্ট হচ্ছে স্টেশনের সরকারি সম্পত্তি।
সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, রেলস্টেশন বলতে শুধু ব্রিটিশ আমলের সেই পাকা ভবনটিই আছে; তাও আবার পশুপাখির আবাসস্থলে পরিণত হয়েছে। অফিস কক্ষের দরজা-জানালাগুলোও ভেঙে গেছে। ভেতরে তাকালে দেখা যায়, অনেক জিনিস ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে। নষ্ট হচ্ছে অনেক মূল্যবান জিনিস।

এলাকাবাসীর দাবি, সাটিয়াজুরী রেলস্টেশনটি চালু করে ট্রেন স্টপিজ দিলে আবারও প্রাণচাঞ্চল্য পাবে। দুর্ভোগ লাঘব হবে এখানকার শতাধিক গ্রামের জনসাধারণের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Registration Form

[user_registration_form id=”154″]

পুরাতন সংবাদ দেখুন

বিভাগের খবর দেখুন