আজ ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সময় : রাত ১০:২৩

বার : বৃহস্পতিবার

ঋতু : বর্ষাকাল

ধর্মপাশায় শ্মশানঘাট নির্মাণে বাধা,ইউপি সদস্য ও তার লোকজনদের হামলায় আহত ৪

এম এইচ লিপু মজুমদার ধরমপাশা প্রতিনিধি

শ্মশানঘাট নির্মানকে কেন্দ্র করে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়নের পাথারিয়াকান্দা গ্রামে স্থানীয় এক ইউপি সদস্য ও তাঁর লোকজনদের হামলায় ওই গ্রামের সংখ্যালঘু পরিবারের চারজন আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল রোববার গভীর রাতে এই ঘটনা ঘটে। আহত ওই চারজনকে আজ সোমবার (২২মার্চ) ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ধর্মপাশা থানা পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়নের নোয়াগাঁও নতুনপাড়া ও পাথারিয়াকান্দা গ্রামের মধ্যবর্তী স্থানে সপ্তাহ খানেক ধরে স্থানীয় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের শেষ কৃত্যানুষ্ঠানের জন্য একটি শ্মশানঘাট নির্মাণের কাজ চলে আসছে। মরদেহ দাহ করার গন্ধ ছড়ানোসহ নানা কারণ দেখিয়ে এই শ্মশানঘাট নির্মাণ কাজে বাধা দিয়ে আসছিলেন একই ইউনিয়নের নোয়াগাঁও নতুনপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ও ৭নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আজিজুল ইসলাম। পাথারিয়াকান্দা গ্রামের হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা সমবেত হয়ে এই কাজ করে আসছেন।শ্মশানঘাট নির্মাণের জন্য সেখানে রাখা রড,বালু,ইট ও পাথর চুরি হতে পারে এই আশঙ্কায় শ্মশানঘাট নির্মাণের মালামাল স্থানীয়রা রাতের বেলায় পাহারা দিয়ে আসছিলেন।গতকাল রোববার রাতে পাথারিয়াকান্দা গ্রামের রবি বর্মন (৫০),অমল বর্মন (২০),দীপ্ত বর্মন (২০),সুবল বর্মন (২০)শ্মশানঘাটের মালামাল পাহারার কাজে নিয়োজিত ছিলেন।রাত অনুমান একটার দিকে ওই ইউনিয়নের ৭নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আজিজুল ইসলামের (৪৫) নেতৃত্বে ৫/৬জন লোক শ্মশানঘাটের মালামাল পাহারার কাজে নিয়োজিত থাকা লোকজনদের ওপর হামলা করে লাঠিসোটা ও বাঁশের খুটি দিয়ে ওই চারজনকে মারধর করেন।আহতদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে আজিজুল তার লোকজন নিয়ে সেখান থেকে চলে যান।পরে স্থানীয় লোকজন আহত ওই চারজনকে সেখান থেকে সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন।
ইউপি সদস্য আজিজুল ইসলামের মুঠোফোন বন্ধ থাকার তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি)চেয়ারম্যান ফরহাদ আহমেদ বলেন,খবর পেয়ে আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ইউএনও মো.মুনতাসির হাসান,ধরমপাশা সার্কেলের সহকারি পুৃলিশ সুজন চন্দ্র সরকার,ওসি মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন সাহেবসহ আমি নিজে ঘটনান্থল পরিদর্শন করেছি। শ্মশানঘাটের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয় নাই। পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে।আমার ইউনিয়নে হিন্দু মুসলমানসহ সকল ধর্মের লোকজনদের সম্প্রীতির বন্ধন অটুট রাখার জন্য আমার সর্বরকম প্রচেষ্ঠা অব্যাহত রয়েছে।শ্মশাটঘাট এলাকায় হামলা চালানোর বিষয়টি নিন্দা জানাচ্ছি।ঘটনায় জড়িতদের খোঁজে বের করে দোষীদের শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

ধর্মপাশা থানার ওসি মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন আজ সোমবার দুপুরে মুঠোফোনে বলেন, এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। হামলার ঘটনায় জড়িত ইউপি সদস্য আজিজুল ইসলাম পলাতক রয়েছে। এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।#

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category