শিরোনাম
কুকুর,বিড়ালদের বাঁচাতে আইনি পরামর্শ এবং করনীয়;-বখতিয়ার হামিদ। ছাতকে বন্যার্তদের মাঝে যুবলীগ নেতা সাহাব উদ্দীনের ২য় ধাপে ত্রান বিতরন হলি আর্টিজান হামলার ৬ বছর;হয়নি মামলার নিষ্পত্তি। বিশিষ্ট শিল্পপতি জনাব আবু উল রশীদ এর পক্ষথেকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ করা হয় লোভ-হিংসা ও সংকির্ণ মনোভাবের ঊর্ধ্বে ওঠে মানবতার কল্যাণে কাজ করে যেতে হবে ——-সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভাণ্ডারী মাধবপুরে কৃষ্ণপুরের ব্রিজটি না হওয়াতে বিকল্প কাঠের সেতু তৈরী করে যানচলাচলে উপযোগী করছেন এলাকাবাসী জগন্নাথপুরে যুক্তরাজ্য প্রবাসী আজাদ মিয়া ফরুকের পরিবারের পক্ষ থেকে ত্রান বিতরণ মৌলভীবাজার সমিতি সিলেট এর ত্রান ও নগদ অর্থ বিতরন বৃষ্টির মধ্যেও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন ইউ.কে প্রবাসী আলাউদ্দিনের পরিবার শাল্লা প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ।
শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১১:৫৯ অপরাহ্ন
Notice :
Wellcome to our website...

তাহিরপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের গৃহ নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে

শওকত হাসান / ৭১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : সোমবার, ১০ জানুয়ারি, ২০২২

তাহিরপুর(সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ-

 

তাহিরপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের গৃহ নির্মানে নকশা পরিবর্তন করে কাজ অনিয়ম করার অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে।

রবিবার (৯জানুয়ারি) সরজমিনে মধ্য তাহিরপুর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক আলীর বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় ঠিকাদার কিছু মাটি গর্ত করে ইট দিয়ে কিছু কাজ করে রেখেছেন।

উজান তাহিরপুর গ্রামের গৃহ প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা হামিদ মিয়া, গিয়াস উদ্দিন ও মধ্য তাহিরপুর গ্রামে প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা সাদেক আলীর সন্তান শাওন মিয়া সহ একাধিক মুক্তিযোদ্ধা জানান, ঘর নির্মাণের আসল নকশা না এনে নকল নকশা দিয়ে কাজ শুরু করেছে ঠিকাদার। এই নকল নকশার নিচের অংশ কলো করা কিছু দেখা যায় না। এতে ভবনের নীচে বাদ পরে ভবনের সব কটি পিলার, সিসি, বেইজ এবং বালি ফিলিং।

রবিবার এ বিষয়ে তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে মৌখিক ভাবে অভিযোগ করেছেন গৃহ প্রাপ্ত বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবার।

অভিযোগকারী মুক্তিযোদ্ধা পরিবার জানান, বিষয়টি তারা প্রথমে বুঝতে পারেন নি। পরবর্তীতে ঠিকাদারের লুকোচুরি করে কাজ কারার বিষয়টি সন্দেহ হলে গৃহ প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধাদের কয়েক জন মিলে সুনামগঞ্জ থেকে তারা একটি নকশা সংগ্রহ করেন। সংগ্রহের পর দেখা যায় ঠিকাদার যে নকশা দিয়ে কাজ করছে সেটির সাথে সংগ্রহকৃত নকশার কোন মিল নেই। তা দেখে সাময়িক ভাবে গৃহ নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখার জন্য ঠিকাদার দের তারা বলেন। কয়েকদিন হলো কাজ বন্ধ রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান প্রকল্প অফিসের সাথে যোগ সুত্র করে শুধু নকশা পরিবর্তন করেই নয় গৃহ নির্মানের সার্বিক কাজে নিম্ন মানের নির্মান সামগ্রী দিয়ে কাজ করছেন।

উপজেলা প্রকল্প অফিস সুত্রে জানা যায়, মুক্তিযোদ্ধাদের গৃহ নির্মানের জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয় তাহিরপুর উপজেলায় প্রাথমিক ভাবে ১২ টি গৃহ নির্মানের উদ্যোগ গ্রহন করে। নভেম্বর মাসে দরপত্র আহবান করে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস। ১৪ নভেম্বর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ তারিখে লটারিতে ১২ টি গৃহ নির্মানের কাজ পায় জে আর এন্টারপ্রাইজ সুনামগঞ্জ। প্রতিটি গৃহের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ১৩ লক্ষ টাকা। ১২ টি গৃহ নির্মাণে সর্বমোট ব্যয় ১ কোটি ৫৬ লক্ষ টাকা। কাজ পাওয়ার পর ঠিকাদার তাহিরপুর সদরে একসাথে ৬ টি গৃহের কাজ শুরু করেন।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জে আর এন্টারপ্রাইজ এর মালিক রিপন মিয়া বলেন, আমাকে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম যে নকশা দিয়েছেন আমি সে নকশা অনুযায়ী কাজ করছি। তিনি আরও জানান প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বলেছেন বিশ্বম্ভরপুরেও একই ভাবে কাজ করা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলা প্রকৌশল অফিসের এক প্রকৌশলী জানান, ভবনের নীচ অংশ পিলার, বেইজ, সিসি সহ ৬ ফিটের মত কাজ রয়েছে। এ গুলো বাদ দিয়ে কাজ করলে ভবন যে কোন সময় ভেঙ্গে পড়বে।

তাহিরপুর উপজেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রফিকুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বাসস্থান নির্মাণ করে দিচ্ছেন। মুক্তিযোদ্ধাদের গৃহ নির্মানে নকশা অনুযায়ী সঠিক কাজ করতে হবে।

গৃহ প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার উজান তাহিরপুর গ্রামের গিয়াস উদ্দিন বলেন, ঠিকাদার গৃহ নির্মানে নয় ছয় শুরু করেছে। আমাদের উজান তাহিরপুর, মধ্য তাহিরপুর ও সূর্য্যেরগাঁও গ্রামে ৪ টি গৃহ নির্মানে তারা তাদের ইচ্ছে মত নকশা তৈরী করে কাজ করছে। আমরা জানতে পেরে তাদের কাজ বন্ধ রাখার কথা বলছি।

তাহিরপুর উপজেলা ত্রান ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম এর মোবাইলে একাধিক বার যোগাযোগ করার চেষ্ঠা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি। এমনকি উনার অফিসে গিয়েও কোন খোঁজ পাওয়া যায় নি। অভিযোগ রয়েছে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা গৃহ নির্মান কাজের দরপত্র আহবানের পর কোটেশনে জনৈক এক ঠিকাদারকে কাজ দিয়ে দেন। পরবর্তীতে তাহিরপুর উপজেলার একাধিক গণ মাধ্যম কর্মীদের তোপের মুখে লটারীর ব্যবস্থা করেন।

এ বিষয়ে তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান কবির সাংবাদিকদের জানান, নকশার বিষয়টি আমি অবগত নই । নকশা কি নতুন করে প্রনয়ন হলো জানি না। প্রকল্প কর্মকর্তার সাথে বসে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Registration Form

[user_registration_form id=”154″]

পুরাতন সংবাদ দেখুন

বিভাগের খবর দেখুন