শিরোনাম
কারখানা থেকে ছুটি না মিললেও দুনিয়া থেকে ছুটি পেল গার্মেন্টস শ্রমিক হাসিব কিশোরগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষার্থী নির্বাচিত হয়েছেন স্বরেয়া হোসেন বর্ষা মানুষ মানুষের জন্য, সকলে বন্যার্ত অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ানো উচিত…এটিএম হামিদ প্রাকৃতিক দূর্যোগে দিশেহারা সিলেট, থৈথৈ করে বাড়ছে পানি কানাইঘাটে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলের দ্বায়িত্বশীলরা পানি বিশুদ্ধ করন ট্যাবলেট নিয়ে উপজেলার বন্যাগ্রস্ত মানুষের পাশে বানিয়াচংয়ে বাংলা টিভি’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন সরকার বন্যার্তদের পাশে আছে ত্রাণের অভাব হবেনা— এমপি মানিক সিলেটে বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শন ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন ঘাটাইল উপজেলায় আশ্রয়ন প্রকল্পের অধীনে বরাদ্দকৃত ঘরে ফাটল ছাতকে বন্যার অবনতি,নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত উপজেলা সদরের সাথে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন
শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন
Notice :
Wellcome to our website...

পশ্চিমবঙ্গ আশা কর্মী ইউনিয়ন(Alutuc অনুমোদিত), আজ সুবোধ মল্লিক স্কোয়ার থেকে মিছিল করে ধর্মতলায় বিক্ষোভ দেখালেন কর্মিরা

Coder Boss / ৮৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২২

কলকাতা প্রতিনিধিঃ

আশা কর্মীদের সরকারী স্বাস্থ্য কর্মীর স্বীকৃতি, সমস্ত বকেয়া ইন্সেন্টিভ প্রদান, বেতন বৃদ্ধি এবং অতিরিক্ত কাজের অতিরিক্ত পারিশ্রমিকের দাবিতে রাজভবন, স্বাস্থ্য ভবন ও নবান্ন অভিযান, সভানেত্রী পাপিয়া অধিকারী নেতৃত্বে, তারা জানান এখন পর্যন্ত 60000 আশা কর্মী বিভিন্ন জেলা জুড়ে কাজ করছে। প্রত্যেক আশাকর্মীর পাওনা প্রায় 30 থেকে 40 হাজার টাকা কিন্তু তাদেরকে দেওয়া হচ্ছে 200, 500 ,300 টাকা করে মাসে একাউন্টে, অথচ তাদের কোন ছুটি নাই অন্যান্য সরকারি অফিসের মতো। কোভিডে নিজেদের জীবনে রিক্স নিয়ে কাজ করতে হয়েছে অথচ রাজ্য সরকার তাদের পাওনা টাকা দিচ্ছে না তারা জানান আমরা মাইনে না পেলে চলবে কী করে আমাদের বাড়িতে ছেলে মেয়ে আছে। তাই আজ সুবোধ মল্লিক স্কোয়ারে প্রায় সাড়ে চার থেকে পাঁচ হাজার আশা কর্মী জমায়েত হয়ে, বেলা একটার সময় মিছিল শুরু করেন মিছিল এস এন ব্যানার্জি রোড ধরে ধর্ম তলায় পৌঁছালে রাস্তার মাঝখানে বসে পড়েন। এবং সেখানে তাদের পান্ডুলিপি পরান। সমস্ত রাস্তায় গাড়ি-ঘোড়া প্রায় চলাচল অচল হয়ে যায় । তারা জানান আমাদের পাওনা অবিলম্বে মিটাতে হবে আজ তারা 15 দফা দাবি নিয়ে এই বিক্ষোভ করেন। 1, আমাদের ন্যূনতম মাইনে 21 হাজার টাকা করতে হবে । 2, কর্মরত অবস্থায় কোনো কর্মীর মৃত্যু হলে তার পরিবারের একজনকে চাকরি এবং এককালীন 5 লক্ষ টাকা সাহায্য দিতে হবে। 3, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী তাদের সমস্ত সুযোগ সুবিধা দিতে হবে ।4, বিভিন্ন জেলায় 8 থেকে 9 মাসের বকেয়া ইন্সেন্টিভ অবিলম্বে দিতে হবে। 5, কাজ করার জন্য পর্যাপ্ত সময় ও পারিশ্রমিক না দিয়ে একটার পর একটা কাজ চাপানো চলবে না । 6, গুরুতর কোনো অসুস্থতায় কাজে যেতে না পারলে তার ফিক্সট ভাতা কাটা চলবে না। 7, আশা কর্মীদের মাসিক উৎসাহ ভাতা আটটি হেডে বিভক্ত করা চলবে না । 8, কোভিড 19 কাজের জন্য আশা কর্মীদের অতিরিক্ত মাসিক এক হাজার টাকা করে দিতে হবে । 9, ফরমেট প্রক্রিয়া বাতিল করে ফিক্স বেতন চালু করতে হবে। 10, সকল আশা কর্মীদের পার্মানেন্ট করতে হবে , অন্যান্য আরো দাবি রাখেন , পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি জেলা থেকে আশা কর্মীরা একটি কথাই বলেন যদি সরকার আমাদের দিকে না তাকায় তবে আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবো, আমরা কাজ করেছি আমাদের পাওনা অবিলম্বে মিটাতে হবে।

রিপোর্টার কলকাতা থেকে শম্পা দাস ও সমরেশ রায়


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Registration Form

[user_registration_form id=”154″]

পুরাতন সংবাদ দেখুন

বিভাগের খবর দেখুন