আজ ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সময় : সকাল ৯:৫৫

বার : শুক্রবার

ঋতু : হেমন্তকাল

জকিগঞ্জে মাদক দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে নিজে ফেঁসে গেলেন

 

এটিএম নাসির:

রহিম সাহেব। একজন পরিচিত মুখ। থানায় তার প্রতিনিয়তই বিভিন্ন কারণে আগমন ঘটে। মাটি ভরাটের ব্যবসাসহ নাম না জানা অনেক ব্যবসাই তার রয়েছে। নানা মানুষের দরখাস্ত নিয়ে থানায় এসে তদবির করার চেষ্টারও অন্ত নেই। পূর্বে তার জীবনে নাকি আরো ১৫/১৬ বার জেল খাটার অভিজ্ঞতাও রয়েছে।

আত্নীয় স্বজনের সাথেও রয়েছে তার শত্রুতা, মাঝে মধ্যে সে অভিযোগও থানায় পাওয়া যায়। যাই হোক অভিজ্ঞতার ঝুলি তার অত্যন্ত ভার। বার বার জেল খাটার কারণে আইন কাননেও বেশ পারদর্শী সে। মাঝে মাঝে থানায় মানুষকে বিভিন্ন পরামর্শ দেওয়ার প্রবনতাও লক্ষ্য করা যায়। সব অভিজ্ঞতাকে পিছনে ফেলে রহিম সাহেব মনে মনে শত্রুকে বধ করার নতুন এক কৌশল খুঁজে বের করলেন।

গত ২৯-০৭-২০২০ খ্রিঃ তারিখ সন্ধ্যায় রহিম সাহেব আমার এক বিশ্বস্ত লোককে গোপনে জানান যে সুলতানপুর ইউনিয়নের কাঁচারচকে একজনের বসত ঘরে ইয়াবা ট্যাবলেট গেলেই পাওয়া যাবে। আর এর জন্য রহিম সাহেব পুলিশকে সবধরনের সহযোগীতা করতে পুরোপুরি প্রস্তুত।

আমার আর বুঝতে বাকি রইল না, “ঠাকুর ঘরে কে রে, আমি কলা খাইনি”। আমি থানা হতে অফিসার ফোর্সকে পুরো বিষয়টি বুঝিয়ে অভিযানে পাঠিয়ে দেই। এসআই/নোটন কুমার চৌধুরী সঙ্গীয় ফোর্সসহ গতরাত ০৩.১৫ ঘটিকায় কাঁচারচক সাকিনের জনৈক মুহিবুর রহমান @ সাদ্দাম এর বড় ভাই এবং আশপাশের প্রতিবেশিকে নিয়ে মুহিবুর রহমান @ সাদ্দাম এর ঘর তল্লাশী শুরু করলে গল্পের শুরুর রহিম সাহেব অর্থাৎ আসামী আব্দুর রহিম (৩৬), পিতাঃ মৃত মনজির @ মনজ্জির আলী @ মনই মিয়া , সাং-ভরণ সুলতানপুর, থানাঃ জকিগঞ্জ, জেলাঃ সিলেট তার পরিহিত প্যান্টের ডান পকেট হতে কালো রংয়ের একটি পলিথিনের ব্যাগ বের করে মুহিবুর রহমানের জানালার পাশে থাকা বিছানার তোষকের নীচে রাখতে যায়।

এ সময় উপস্থিত সবাই চিৎকার করে উঠলে আসামী রহিম কর্তৃক রাখা ব্যাগটি তল্লাশী করে ০১ টি রায়ুরোধক কালো পলিব্যাগের ভিতরে ১০০ (একশত) পিস ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া যায়। আসামী রহিমকে বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায় যে, অপর আসামী শিহাব উদ্দিন @ শিহাব এবং শিল্পী বেগম এর পরামর্শে তাদের দেওয়া ইয়াবা ট্যাবলেট শত্রুতা বশতঃ নিজ হেফাজতে রেখে মুহিবুর রহমান @ সাদ্দাম কে মাদক মামলায় ফাঁসানোর পরিকল্পনা করে। পুলিশের নিকট মিথ্যা সাক্ষ্য সৃষ্টি করে, সংঘটিত অপরাধ সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য সরবরাহ করায় তাদের বিরুদ্ধে জকিগঞ্জ থানার মামলা নং-৪৫, তাং-২৯-০৭-২০২০ খ্রিঃ, ধারাঃ ২০১৮ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ৩৬(১) এর ১০(ক)/৪১ তৎসহ ১৯৩/২০৩ দঃ বিঃ রুজু করা হয়েছে। আসামী রহিম এর বিরুদ্ধে ১।

কোতয়ালী মডেল থানার মামলা নং-৩৯, তাং-২৯-১০-২০১৬ খ্রিঃ, ধারাঃ ৩২৩/৩২৬/৩০৭/৩৭৯/৩৫৪/৪০৬/৪১৭/৫০৬(২)/ ৩২৫/৫০৬ দঃ বিঃ, ২। জকিগঞ্জ থানার মামলা নং-১৭, তাং-২৫-০৫-২০১২ খ্রিঃ, ধারাঃ ১৪৩/৪৪৭/৩২৩/৩২৪/ ৩০৭/৫০৬/১১৪ দঃ বিঃ, ৩। জকিগঞ্জ থানার মামলা নং-২০, তাং-২৫-০২-২০১৯ খ্রিঃ, ধারাঃ ৩২৮/৩৭৯/৫১১
/৩৪ দঃ বিঃ, ৪। জকিগঞ্জ থানার মামলা নং-১৬, তাং-২১-০৭-২০০৭ খ্রিঃ, ধারাঃ ১৪৩/৩২৩/৪৪৭/৩২৪ দঃ বিঃ মামলা সমূহ বিচারাধীন রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category