শিরোনাম
অজ্ঞান পার্টির কবলে পড়ে নগদ অর্থ ও স্বর্ণালংকার হারালেন ‘সোমা’। ঘাটাইল ট্রাফিক আইন সম্পর্কে সক্ষমতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণ সাতক্ষীরার কলারোয়া সীমান্ত থেকে এক অস্ত্র ব্যবসায়ী আটক ইদের আগে শ্রমিকদের বেতন- বোনাস পরিশোধের দাবিতে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের মিছিল সমাবেশ আহঃ যেনো ফুটন্ত গোলাপের পাপড়ি যেদিন বিএনপি’র নেতাকর্মীরা ভোট দিতে পারবেন,সেদিন বিএনপি নির্বাচনে যাবে-গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। কিশোরগঞ্জের পাগলা মসজিদের দানবাক্সে মিললো ৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা কুকুর,বিড়ালদের বাঁচাতে আইনি পরামর্শ এবং করনীয়;-বখতিয়ার হামিদ। ছাতকে বন্যার্তদের মাঝে যুবলীগ নেতা সাহাব উদ্দীনের ২য় ধাপে ত্রান বিতরন হলি আর্টিজান হামলার ৬ বছর;হয়নি মামলার নিষ্পত্তি।
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৯:৩৭ অপরাহ্ন
Notice :
Wellcome to our website...

মানবতার ফেরিওয়ালা ছিলেন প্রয়াত ডাক্তার আলহাজ্ব জমির আহমদ

Coder Boss / ৪৬৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২০

রাজা মিয়া বিশেষ প্রতিনিধিঃ

সিলেটের ওসমানী নগর উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামে জন্ম। নাম উনার আলহাজ্ব জমির আহমদ, ছোটবেলা থেকেই মানবতাবাদী আচরণে বেড়ে উঠে জীবনের শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করার পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত এলাকায় মানুষের কল্যাণে যিনি অনবরত কাজ করে গেছেন। শিক্ষা, স্বাস্থ্য,কৃষি ও দিনমজুরদের সহায়তার লক্ষ্যে বটবৃক্ষের মতো পাশে ছিলেন।দীর্ঘদিন দিন সুদূর আমেরিকায় থাকার পরে দেশে ফিরে ১৯৬৯ সালে ১৬৬ শতক ভূমির উপর নির্মাণ করেন জমির আহমদ বহু মুখী উচ্চ বিদ্যালয়, অত্র বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে দীর্ঘদিন যাবত বিদ্যালয়ের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন।
এলাকায় অবহেলিত ও বঞ্চিত ছেলেমেয়েদের সুশিক্ষার জন্য সিলেট জেলার বিশ্বনাথ থানার অন্তর্গত জমির আহমদ বহু মুখি উচ্চ বিদ্যালয়ে লেখা পড়া করে আজ দেশ ও বিদেশে এলাকার সুনাম কুড়াতে যাচ্ছেন অত্র বিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীরা।
জমির আহমদ সর্বক্ষন মানুষের কল্যাণে নিয়োজিত এক নিবেদিত প্রাণ ছিলেন।
জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত নিজের সবটুকু বিসর্জন দিয়ে এই বিদ্যালয় কিংবা এলাকার উন্নয়নে নিজেকে আত্ম নিয়োগ করে রেখেছিলেন।
জমির আহমদ কখনো মানুষের কষ্টের কথা শুনলে ঘরে বসে থাকতেন না,মানুষের দুঃসময়ে ছায়ার মতো পাশে থাকতেন। জমির আহমদ উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশাপাশি উনার এলাকায় জমির আহমদ যাত্রী চাউনি, দৌলতপুর কমিউনিটি ক্লিনিক, আয়েশা আহমদ হাফিজিয়া মাদ্রাসা,সহ এলাকার অবহেলিত রাস্তা ঘাট সড়ক কালভার্ট সহ সামাজিক উন্নয়নে সহায়তা করে গেছেন। সর্ব শেষ ২০২০ সালে ১৬ ই ডিসেম্বর শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।
উনার মৃত্যুে এক অপূরনীয় ক্ষতি হয়ে গেছে বলে মনে করেন এলাকাবাসী। এদিকে বাবার রেখে যাওয়া ইতিহাস ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে আগামী দিনে এলাকার উন্নয়নে এক যোগে কাজ করে যাবেন বলে জানান উনার একমাত্র ছেলে মনজুর আহমদ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Registration Form

[user_registration_form id=”154″]

পুরাতন সংবাদ দেখুন

বিভাগের খবর দেখুন