শিরোনাম
চট্টগ্রামে দূর্মর বাংলাদেশ এর বৃক্ষরোপন কর্মসূচি সম্পন্ন একাই করেন তিনটি সরকারি চাকুরী দ্রব্যমূল্য উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে জগন্নাথপুরে জাতীয় পার্টির প্রতিবাদসভা বড়লেখার হাকালুকি হাওর পারে গৃহনির্মাণ সামগ্রী বিতরণ জামিনে বের হয়ে ফের দুই প্রতারক সহ গ্রেফতার মজিবুর রহমান। গুমান মর্দন প্রবাসী পরিষদ সংযুক্ত আরব আমিরাত গভীরভাবে শোকাহত বৃহত্তর গোলাপগঞ্জ উপজেলার মানব সেবায় নিয়োজিত হবিগঞ্জের মাধবপুরে ১০ কেজি গাজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার বানিয়াচংয়ে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মবার্ষিকী পালিত বিশ্বনাথে নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন কমিটি মতবিনিময় সভা আহবায়ক কমিটি গঠন
শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০২:৩১ অপরাহ্ন
Notice :
Wellcome to our website...

সরকার ‘জঙ্গলের আইনে’ দেশ চালাচ্ছে;-গণসংহতি আন্দোলনের নেতৃবৃন্দ।

সত্যজিৎ দাস / ৮৬ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৭ জুলাই, ২০২২

স্টাফ রিপোর্টার:
খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে জয়সেন পাড়ায় পাহাড়ী জনগোষ্ঠীর উপর হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় জড়িত সরকারদলীয় সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও বিচার করতে হবে ও দিনেদুপুরে সংগবদ্ধ হামলা ঠেকাতে ব্যর্থ দায়ী প্রশাসন ও পুলিশ কর্মকর্তাদের শাস্তি দেয়ার দাবি জানিয়েছে গণসংহতি আন্দোলন।

বৃহস্পতিবার ৭ জুলাই গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি ও নির্বাহী সমন্বয়কারী আবুল হাসান রুবেল এক যৌথ বিবৃতিতে খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে জয়সেন পাড়ায় পাহাড়ী জনগোষ্ঠীর উপর হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনার নিন্দা জানিয়ে জড়িত সরকারদলীয় সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও বিচার করেছেন। একইসাথে নেতৃবৃন্দ দিনে দুপুরে সংঘবদ্ধ এই হামলা ঠেকাতে ব্যর্থ প্রশাসন ও পুলিশ কর্মকর্তাদের শাস্তি দাবি করেছেন।

নেতৃবৃন্দ বলেন,পাহাড়ী জনগোষ্ঠীর ভুমি দখলকে কেন্দ্র করে মহালছড়িতে জয়সেন পাড়ায় গত মঙ্গলবার (৫ জুলাই) যে আক্রমণ চালানো হয়েছে ও যা ঘটেছে,বিভিন্ন এলাকা থেকে দলবদ্ধ হয়ে এসে সরকারদলীয় সন্ত্রাসীরা যেভাবে সিনেমা ষ্টাইলে পাহাড়িদের ঘরবাড়িতে হামলা,ভাঙচুর,লুটাপাট অগ্নিসংযোগ চালিয়েছে তাতে প্রমানিত হয়েছে এই সরকার ‘জঙ্গলের আইনে’ দেশ চালাচ্ছে। এঘটনায় অন্তত ৩৭টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ করে দুর্বৃত্তরা আগুন দিয়েছে,কিন্তু এখনও পর্যন্ত পুলিশ কোনো কোন মামলা করেনি,তদন্ত করেনি। দেখা যায় প্রশাসন ও পুলিশ ঘটনার সামাল দিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। তাদের এই ব্যর্থতার কারণ অদক্ষতা যেমন,তেমনি বলা যায় একটা স্বৈরতান্ত্রিক রাষ্ট্রে জনগনের সাথে কোন বিশ্বাসযোগ্যতার সম্পর্ক না থাকা।

গণসংহতি আন্দোলনের পক্ষ থেকে আমরা বারবার বলেছি,একচ্ছত্র,প্রশ্নহীন ক্ষমতার চর্চা যখন দেশের সকল স্তরে দেখা যায় তা সমাজের ভেতরও উগ্রতার বিকাশ ঘটায়। এবং আইন ও বিচার নিজের হাতে তুলে নেবার লক্ষণ দেখা যায়। নড়াইল কিংবা সাভারে শিক্ষকের সাথে ঘটা ঘটনার সাথে খাগড়াছড়ির ঘটনার যোগসূত্র একই। এখানে পুলিশ নীরব থেকে বরং অপরাধ সংগঠিত হতে দিয়েছে এবং ক্ষেত্রবিশেষে অপরাধীদের সহায়ক হতে দেখা গিয়েছে।

সংবাদপত্র ও বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল মারফত জানা যায়,হামলাকারী প্রাক্তন মেম্বার মোঃ আজিজের নেতৃত্বে প্রায় ১২০ থেকে ১৫০ জন সন্ত্রাসী দল বেধে জেলার মহালছড়ি উপজেলা ৪নং মাইসছড়ি ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের জয়সেন পাড়া এলাকায় পাহাড়িদের ঘরবাড়িতে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ ঘটিয়েছে। ক্ষমতার কাছাকাছি থাকলে যে অপরাধ করেও বিচারের সম্মুখীন হতে হয়না এ ধারণা যখন সমাজে প্রতিষ্ঠিত হয় তখন যারা নিজেদের ক্ষমতাবান মনে করেন তখন তারা যা খুশি তাই করতে থাকেন। তাই গণসংহতি আন্দোলনের নেতৃবৃন্দরা প্রথমেই এই ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিচারের দাবি জানান।

গণসংহতি আন্দোলন মনে করে,এই প্রতিটি ঘটনায় যারা জড়িত ও দোষী,তাদের গ্রেফতার, আইনের আওতায় আনা এবং উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। এই আইনের আওতায় আনার বেলায় প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্তদেরও ছাড় দেয়া চলবে না।

গণসংহতি আন্দোলন সুষ্পষ্ট ভাবে বলে এসেছে, প্রশাসনকে শক্তিশালী করার একটাই অর্থ রয়েছে, সেটা হলো প্রশাসনকে দায়িত্বশীল, জবাবদিহিতামূলক ও স্বচ্ছ করতে হবে। তারা যেমন তাদের কাজের জন্য স্বাধীনতা পাবেন, তেমনি অদক্ষতা ও ব্যর্থতার দায়ও তাদের নিতে হবে। এই দায়িত্ব ও দায় নিশ্চিত করতে হলে সবার আগে প্রয়োজন গণতন্ত্র ও আইনের শাসন নিশ্চিত করা। বর্তমান পরিস্থিতিতে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে যে প্রশাসন ও দলীয় ব্যক্তিদের একচ্ছত্র বেআইনী শাসন চলছে,তার পরিণাম অচিরেই দেশকে খারাপ থেকে খারাপতর দিকে নিয়ে যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Registration Form

[user_registration_form id=”154″]

পুরাতন সংবাদ দেখুন

বিভাগের খবর দেখুন