শিরোনাম
কিশোরগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষার্থী নির্বাচিত হয়েছেন স্বরেয়া হোসেন বর্ষা মানুষ মানুষের জন্য, সকলে বন্যার্ত অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ানো উচিত…এটিএম হামিদ প্রাকৃতিক দূর্যোগে দিশেহারা সিলেট, থৈথৈ করে বাড়ছে পানি কানাইঘাটে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলের দ্বায়িত্বশীলরা পানি বিশুদ্ধ করন ট্যাবলেট নিয়ে উপজেলার বন্যাগ্রস্ত মানুষের পাশে বানিয়াচংয়ে বাংলা টিভি’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন সরকার বন্যার্তদের পাশে আছে ত্রাণের অভাব হবেনা— এমপি মানিক সিলেটে বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শন ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন ঘাটাইল উপজেলায় আশ্রয়ন প্রকল্পের অধীনে বরাদ্দকৃত ঘরে ফাটল ছাতকে বন্যার অবনতি,নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত উপজেলা সদরের সাথে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন গোবিন্দগঞ্জে বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুর্ধ১৭ এর সেমিফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত
শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ১২:৫১ পূর্বাহ্ন
Notice :
Wellcome to our website...

মধ্যবিত্য আমার এ মন।

Coder Boss / ৪১৬ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বুধবার, ২২ এপ্রিল, ২০২০

একজন মধ্যবিত্ত ঘরের ছেলে এবং একজন উচ্চবিত্ত ঘরের ছেলের চেহারার বাহ্যিক অবয়বের মধ্যেই একটা আলাদা ব্যপার থাকে।
ধরো, একটা উচ্চবিত্ত ঘরের ছেলের পরিস্কার জামা কাপড় যদি একটা মধ্যবিত্ত ঘরের ছেলের গায়ে দিয়ে দেওয়া হয়, তবুও তার শরীর থেকে মধ্যবিত্তের ঘ্রাণটা একেবারে যায়না। উচ্চবিত্তদের একটা আলাদা রকমের গ্ল্যামার থাকে। এরা মধ্যবিত্তের শরীরের জামা খুলে নিজের গায়ে জড়ালেও তাদের উচ্চবিত্তই লাগে।

শহরের বড় বড় ফ্ল্যাটে এসি রুমে থাকা গর্ভবতী মহিলার সন্তান কালো হয়ে জন্মালেও দিন দিন গুলুমুলু টাইপ হতে শুরু করে। মধ্যবিত্তের সন্তানদের চেহারায় একটা গরীব গরীব ভাব থাকে। ফর্শা হয়ে জন্মালেও দিন দিন কালো হতে থাকবে। প্রকৃতি নিজে থেকেই এই দুই শ্রেণীকে আলাদাভাবে গঠন করে দেয়।

বছর তিনেক আগে আমার একজন উচ্চবিত্ত ছেলের সাথে কয়েকবার দেখা হওয়ার পর খেয়াল করলাম, যখনই তার সাথে দেখা হয়, তখনই তার পায়ের জুতা জোড়া চকচকে দেখায়। দেখলে মনে হয়, এই মাত্রই বোধহয় শপিং মল থেকে কিনে নিয়ে আসছে।
অনেকদিন পর আমি এক জোড়া নতুন জুতা পায়ে দিয়ে তার সাথে দেখা করতে যাওয়ার পর খেয়াল করলাম, তার জুতা আজকেও নতুনের মতো চকচক করতেছে৷ আমি আমার নিজের নতুন জুতার দিকে তাকিয়ে খেয়াল করলাম, জুতার সামনের অংশে ধূলা জমে গেছে। সে যাতে দেখে না ফেলে এই চিন্তা করতে করতে সুযোগ বুঝে জুতার সামনের অংশ প্যান্টের পেছনে নিয়ে ঘষতে ঘষতে মুছে ফেললাম। তারপরও তাকিয়ে দেখলাম, আমার জুতার চেয়ে তার জুতার গ্ল্যামার এখনো উজ্জ্বল।
উচ্চবিত্তদের সবকিছুই একটু উচ্চবিত্ত হয়। মধ্যবিত্ত যতই উচ্চবিত্ত হওয়ার চেষ্টা করুক না কেন, তার বাহ্যিকতার পরিবর্তন পুরোপুরি সম্ভব না।

উচ্চবিত্তদের কান্না এবং মধ্যবিত্তদের কান্নার মাঝেও পার্থক্য থাকে।
উচ্চবিত্তদের কান্নায় চোখ থেকে জল কম বের হয়। ভাঁজ করা টিস্যু চোখের সামনে ধরলেই দু’এক ফোটা জল নেই হয়ে যায়।
মধ্যবিত্তদের কান্নাও মধ্যবিত্তদের মতো। যখন বের হয়, তখন জলপ্রপাতের মতন বের হতেই থাকে। টিস্যু দিয়ে মধ্যবিত্তের কান্নার জল কমানো যায়না। এদের শার্টের হাতার পেছনের অংশ দিয়ে কিংবা ওরনা দিয়ে চোখ মুছলেও জল কমেনা। একবার বের হতে শুরু করলে, বের হতেই থাকে।

উচ্চবিত্ত এবং মধ্যবিত্তের পাকস্থলির সাইজও আলাদা রকমের।
একটা টোস্ট কিংবা এক পিস ব্রেডের সাথে জেলি মেখে খেলেই উচ্চবিত্তের ব্রেকফাস্ট হয়ে যায়। মধ্যবিত্ত থালা ভর্তি ভাত খেয়ে সকালে বের হলেও ঘন্টা দুই পর ক্ষুধায় পেটে মোচর দেয়।

মধ্যবিত্তদের এটা করতে নেই ওটা করতে নেই, এই নীতিতে আমার বিশ্বাস নাই। মধ্যবিত্ত হয়ে তুমি যা ই করো না কেন, তুমি মধ্যবিত্তই থাকবে।
মূলত মধ্যবিত্ত এবং উচ্চবিত্তের গঠনের ধরনই আলাদা হয়।
শুধু মাত্র টাকা পয়সা ছাড়া মধ্যবিত্তদের বাকি সব কিছুই উচ্চবিত্তদের তুলনায় বেশি।
মধ্যবিত্তদের চোখ থেকে জল বের হয় বেশি, দুঃখ কষ্ট বেশি, ক্ষুধা বেশি, হতাশা বেশি, আফসোসও বেশি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Registration Form

[user_registration_form id=”154″]

পুরাতন সংবাদ দেখুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  

বিভাগের খবর দেখুন