শিরোনাম
আরাফার দিনে রোজা রাখার ফজিলত ঈদে ঘরমুখো মানুষের যাত্রা নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করতে শ্রীমঙ্গলে নিরাপদ সড়ক চাই এর উদ্যোগে সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন মাধবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় ১পথচারী নিহত হজ্ব ও কুরবানির রক্ত মাংস আল্লাহর কাছে পৌঁছে না পৌঁছে এখলাস ও তাকওয়া ——— খতিব মুফতী রুহুল আমীন জৈন্তাপুরে ইমন মায়ের চিকিৎসার জন্য ৬ লাখ টাকা পরিবারের নিকট হস্থান্তর জিমাউফা আইনি সহায়তা কেন্দ্রের পক্ষ থেকে ইভটিজিং প্রতিরোধ দিবস পালিত শ্রীমঙ্গলে ভূমি সপ্তাহ উপলক্ষে ১৪৭ জন গৃহ ও ভূমি প্রাপ্ত উপকারভোগীদের মাঝে খতিয়ান হস্তান্তর কারিতাস আলোকিত শিশু প্রকল্প কতৃর্ক শিশুদের অধিকার এবং বর্তমান প্রেক্ষাপট শীর্ষক শিশু কনফারেন্স অনুষ্ঠিত শ্রীমঙ্গলে এসএসসি জিপিএ-৫ প্রাপ্ত কৃতি দুই শিক্ষার্থীকে এসএসসি-৯১ ব্যাচের সংবর্ধনা শ্রীমঙ্গলে গ্যাস সঞ্চালন লাইনের ওপর নির্মিত অবৈধ ২৫টি ঝুঁকিপূর্ণ স্থাপনা উচ্ছেদ
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ১০:২৭ পূর্বাহ্ন
Notice :
Wellcome to our website...

জিলহজ্জ মাসের যে একদিনের ইবাদতে ২ বছরের গুণাহ মাফ।

Coder Boss / ৫৩৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৮ জুলাই, ২০২০

রাফি,কুলাউড়া প্রতিনিধিঃ

 

বছরের শ্রেষ্ঠ রাত (সূর্যাস্ত থেকে সুবহে সাদিক পর্যন্ত) হলো লাইলাতুল কাদর বা কদরের রাত, যা রমজান মাসের শেষ দশ রাতের যেকোনো একটি বেজোড় রাত। অন্য দিকে, বছরের শ্রেষ্ঠ দিন (বিশেষ করে জোহরের সময় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত) হলো জিলহজ মাসের ৯ তারিখ যা ইয়াওমু আরাফাত বা আরাফাতের দিন হিসেবে পরিচিত। তাই বছরের সর্বোত্তম দিন হিসেবে এ দিন স্বীকৃত। এ দিনের রয়েছে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ফজিলত। আসুন, আমরাও এই নেক আমলগুলো সম্পর্কে জেনে নিই এবং পালন করে নেক লাভ করি-

১) রোজা রাখা: এ দিন রোজা রাখা সুন্নত। যা আগামী ও গত মোট দুই বছরের ছোট গুনাহ থেকে আপনাকে পরিত্রাণ দেবে।

২) জামাতের সাথে নামাজ আদায়: চেষ্টা করতে হবে প্রতি ওয়াক্তের নামাজ জামাতের সাথে আদায় করতে।

৩) ইশরাকের নামাজ: সূর্যোদয়ের ১৫-২০ মিনিট পর ইশরাকের নামাজ আদায় করা উত্তম।

৪) জিকির, তওবা, ইসতেগফার: এ দিন সারাদিনই বেশি বেশি জিকির, তওবা ও ইসতেগফার পাঠ করা খুব ভালো।

৫) দরুদ পাঠ ও কোরআন তেলাওয়াত: বেশির থেকে বেশি দরুদ শরিফ পাঠ এবং কোরআন তেলাওয়াত করা খুবই ভালো।

৬) আরাফাতের দিনের দোআ: আরাফর দিনে হাজি সাহেগণ জোহর থেকে আসরের মধ্যে একটি বিশেষ দোআ পাঠ করে থাকেন। নেক আমলের অংশ হিসেবে সব মুসলমানই এটি পাঠ করতে পারেন। এই দোআটি প্রসঙ্গে মহানবী (সা.) বলেন, শ্রেষ্ঠ দোআ হচ্ছে আরাফাত দিবসের দোআ। দোআটি নিচে উল্লেখ করা হলো-

لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ وَحْدَهُ لاَ شَرِيكَ لَهُ، لَهُ الْمُلْكُ وَلَهُ الْحَمْدُ وَهُوَ عَلَى كُلِّ شَيْءٍ قَدِيرٌ

[লা ইলা-হা ইল্লাল্লা-হু ওয়াহদাহু লা শারিকা লাহু, লাহুল মূলকু ওয়া লাহুল হামদু, ওয়া হুয়া ‘আলা কুল্লি শাই’ইন ক্বদীর]

একমাত্র আল্লাহ ছাড়া কোনো হক্ব-ইলাহ নেই, তাঁর কোনো শরিক নেই; রাজত্ব তাঁরই, সমস্ত প্রশংসাও তাঁর; আর তিনি সকল কিছুর ওপর ক্ষমতাবান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Registration Form

[user_registration_form id=”154″]

পুরাতন সংবাদ দেখুন

বিভাগের খবর দেখুন