আজ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২০শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সময় : দুপুর ১২:৫২

বার : মঙ্গলবার

ঋতু : হেমন্তকাল

আবারও উন্নয়ন বঞ্চিত হচ্ছে বিশ্বনাথ উপজেলা বাসী

রাজা মিয়া বিশেষ প্রতিনিধিঃ

শত জল্পনা কল্পনার মধ্য দিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোট মনোনীত জাতীয় পার্টির তৎকালীন সংসদ সদস্যকে হারিয়ে বিশ্বনাথ ও ওসমানী নগরের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য এমপি মোকাব্বির খান,আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতা নৌকার প্রার্থী হতে চাইলে টিকেট না পেয়ে তাদের ইশারায় একাধিক প্রার্থী নির্বাচন করেন,এতে মহাজোট সরকারের ঐ আসনে ভরাডুবি হয়েছে।

বর্তমান সংসদ সদস্য মোকাব্বির খান ৭৯ হাজারের ও বেশি ভোট পেয়ে জাতীয় ঐক্য ফন্টের প্রার্থী হয়ে বি এন পির জন সমর্থন নিয়ে উদীয়মান সূর্য প্রতিকে নির্বাচিত হলেন।

এরপর থেকে এমপি মোকাব্বির খান কিছু দিন বি এন পির স্হানীয় নেতা কর্মীদের সাথে আতাত করে চলতেন।
হঠাৎ মোকাব্বির খানের উপর মন খারাপ করেন অনেক নেতারা।

অন্যদিকে মোকাব্বির খান আওয়ামী লীগ বি এন পি সহ সকল রাজনৈতিক দলের সাথে সমম্বয় রেখে চলতে চাইলে কিছু স্বার্থবাদী মহলের ব্যক্তিগত ফায়দা হাসিলের উদ্দেশ্য চলে আসে,এতে মোকাব্বির খানের উপর অনেকেই কুৎসা রটাতে শুরু করেন।

এদিকে গত ১০ আগস্ট বিশ্বনাথ উপজেলা পরিষদের আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় যোগদান করতে বিশ্বনাথে আসলে আওয়ামী লীগের একটি বলয় তার উপর হামলা করে।

এর পূর্বে আগে আওয়ামী লীগের নেতাদের সাথে অনেক প্রোগাম করেছেন এমপি মোকাব্বির।
সেখানে কেউ মোকাব্বির খানের উপর এ রকম মনোভাব পোষণ করতে দেখা যায় নি, তার উপর হামলার দায়ে কিছু আওয়ামী লীগ সমর্থক নেতাকর্মীকে আসামি করে মামলা করা হয়,এতে একজন গ্রেপ্তার হয়েছেন।

এদিকে হামলার তীব্র নিন্দা ও ধিককার জানান অনেকই,সাবেক সংসদ ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী,সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমান,ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা হাবিবুর রহমান,উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ্ব পংকি খান ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ,
তবে গণফোরাম নেতারা হামলার তিনদিন অতিবাহিত হলেও কোনো কথা না বলায় উপজেলা গণফোরাম কমিটিকে স্হগিত করে জেলা কমিটি।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও সুশীল সমাজের দাবি বিষয়টি নিষ্পত্তি করা, একজন নির্বাচিত এমপি কে বিনা অপরাধে অপমান করা মানে জনগণের স্বার্থে আঘাত হানা।

উপজেলাবাসী দীর্ঘদিন ধরে উন্নয়নের ছৌয়া দেখেনি,নেই তাদের সুখ দুঃখে কথা বলার মতো একজন অভিবাবক,তিনি যেই দলের থাকেন না কেন তাকে এভাবে অপমান করে রাজনৈতিক দ্বন্দ সৃষ্টি করে জনগণকে উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে, শেষ পর্যন্ত বিষয়টিকে আপোষ মিমাংসা করার ও দাবি জানান তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category