আজ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সময় : রাত ৪:৩৫

বার : রবিবার

ঋতু : হেমন্তকাল

“পদ্মশ্রী” নিন্দুকদের মুখ বন্ধ করবে;-কঙ্গনা রানাওয়াত।

স্টাফ রিপোর্টার:

কঙ্গনা রনৌত,সবার কাছে কঙ্গনা রানওয়াত নামে পরিচিত এই ভারতীয় জনপ্রিয় চলচ্চিত্র অভিনেত্রী।কঙ্গনা ১৯৮৭ সালের ২৩ মার্চ ভারতের হিমাচল প্রদেশের মান্দি জেলার একটি শহরের রাজপুত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার মা আশা রানাওয়াত একজন স্কুল শিক্ষিকা এবং তার বাবা অমরদ্বীপ রানাওয়াত একজন ব্যবসায়ী।তার রাঙ্গোলী নামের একটি বড় বোন এবং আকশাত নামে ছোট ভাই রয়েছে। তার পিতামহ সারজু সিং রানাওয়াত আইনসভার একজন খ্যাতনামা সদস্য ছিলেন এবং তার দাদীমা ইন্ডিয়ান অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিসের একজন কর্মকর্তা ছিলেন।তিনি ভাম্বলার পৈতৃৃক বাড়িতে যৌথ পরিবারের মধ্যে দিয়ে লালিত পালিত হন এবং তার শৈশবকাল “সাধারণ ও সুখী” ছিল বলে বর্ণনা করেন।
হিমাচল প্রদেশের ছোট শহর ভাম্বলায় জন্মগ্রহণকারী রানাওয়াত তার পিতামাতার পীড়াপীড়িতে শুরুতে ডাক্তার হতে চেয়েছিলেন। তার নিজের কর্মজীবন শুরুর লক্ষ্যে তিনি ১৬ বছর বয়সে দিল্লিতে পাড়ি জমান এবং অল্প সময় মডেলিং করেন। মঞ্চ পরিচালক অরবিন্দ গৌড়ের নিকট প্রশিক্ষণ লাভের পর রানাওয়াত ২০০৬ সালের থ্রিলার চলচ্চিত্র গ্যাংস্টার-এর মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্রে আগমন করেন এবং এই কাজের জন্য শ্রেষ্ঠ নবাগত অভিনেত্রী বিভাগে ফিল্মফেয়ার পুরস্কার অর্জন করেন। তিনি নাট্যধর্মী ও লামহে (২০০৬), লাইফ ইন আ… মেট্রো (২০০৭), ও ফ্যাশন (২০০৮) চলচ্চিত্রে ভাবানুভূতিপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করে প্রশংসিত হন। তন্মধ্যে ফ্যাশন চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন।

কঙ্গনা মিডিয়াতে তার সৎ মতামত প্রকাশের জন্য জনসাধারণের কাছে বিশেষভাবে সুপরিচিত এবং নিজেকে অন্যতম একজন ভারতীয় সেলিব্রেটি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।
রানাওয়াত চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। তন্মধ্যে ফ্যাশন (২০০৮) চলচ্চিত্রের জন্য একবার শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে এবং কুইন (২০১৪), তনু ওয়েডস মনু (২০১৫) ও মণিকর্ণিকা: দ্য কুইন অব ঝাঁসি (২০১৯) চলচ্চিত্রের জন্য তিনবার শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে। এছাড়াও তিনি ৪ বার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার পুরস্কার পান যথাক্রমে গ্যাংস্টার (২০০৬) চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ নবাগত অভিনেত্রী বিভাগে, ফ্যাশন (২০০৮) চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে, কুইন (২০১৪) চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে এবং তনু ওয়েডস মনু (২০১৫) চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী (সমালোচক) বিভাগে।
পদ্মশ্রী ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মাননা। শিল্পকলা, শিক্ষা, বাণিজ্য, সাহিত্য, বিজ্ঞান, খেলাধূলা, সমাজসেবা ও সরকারি ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য ভারত সরকার এই সম্মান প্রদান করেন। এই সম্মাননা সাধারণত ভারতের নাগরিকদেরই প্রদান করা হয়। ভারতীয় সম্মাননার মর্যাদাক্রম অনুসারে, পদ্মশ্রীর স্থান ভারতরত্ন, পদ্মবিভূষণ ও পদ্মভূষণের পরে। পদকের একদিকে পদ্মফুলের উপরে ও নিচে “পদ্ম” ও “শ্রী” শব্দদুটি খচিত আছে। অপর দিকে বার্নিসড ব্রোঞ্জের উপর বিভিন্ন জ্যামিতিক আকারের চিত্র রয়েছে। সকল খোদাই লিপি সাদা সোনালি রঙে চিত্রিত।

২০২০ সালের ২৬শে জানুয়ারি ঘোষণা করা হয়েছিল পদ্ম-সম্মান প্রাপকদের নামের তালিকা। বলিউড ইন্ডাস্ট্রি থেকে কঙ্গনা রানাওয়াত,করণ জোহর, একতা কাপুর এবং আদনাম সামিদের মতো তারকাদের দেশে চতুর্থ সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মানে ভূষিত করেছিল মোদী সরকার।
সোমবার(০৮ নভেম্বর) ভারতের নয়া দিল্লিতে রাষ্ট্রপতির হাত থেকে সম্মান গ্রহণ করলেন কঙ্গনা রানাওয়াত।এরপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিয়ো পোস্ট করে সমালোচকদের একহাত নিলেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জেতা এই অভিনেত্রী।
গোল্ডেন-গ্রিন শাড়িতে একদম সাবেকি সাজে ধরা দিলেন কঙ্গনা। হাসিমুখে রাষ্ট্রপতির হাত থেকে সম্মান গ্রহণ করলেন সদ্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জেতা অভিনেত্রী। এবং সম্মান গ্রহণ করার পরপরই ইনস্টাগ্রামে নিজের একটি ভিডিয়ো আপলোড করেছেন কঙ্গনা। সেখানে নিন্দুক ও সমালোচকদের উদ্দেশে কটাক্ষ করতে মোটেই ভুল করেননি তিনি।

ইনস্টাগ্রামের ওই ভিডিয়োতে কঙ্গনাকে বলতে শোনা যাচ্ছে যে তিনি তাঁর অভিনয় জীবনে বহু পুরস্কার পেয়েছেন কিন্তু পদ্মশ্রী সম্মানে সম্মানিত হয়ে তিনি উপলব্ধি করলেন একজন ‘আদর্শ নাগরিক’ হিসেবেও দেশ তাঁকে বিবেচনা করেছে। কঙ্গনার কথায়, ‘ অল্প বয়সে বলিউডে পা রেখেছিলাম। ঠিকঠাক সাফল্য পেতে পেতেই ৮-১০ বছর কেটে গেছিল। শেষপর্যন্ত যখন সাফল্যের স্বাদ পেলাম তা আনন্দ করার সুযোগ পায়নি। বদলে আরও পাঁচটি বিষয়ে জড়িয়ে ফেলেছিলাম নিজেকে। একধারে যেমন ফেয়ারনেস ক্রিমের প্রচার করা থেকে শুরু করে বলিউডের বিগ বাজেটের সব ছবিতে আইটেম নম্বরে নাচ করা থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছি তেমনই টিনসেল টাউনের তাবড় তাবড় নায়ক ও প্রযোজকদের ছবিতেও কাজ করা বন্ধ করে দিয়েছি। রোজগারের তুলনায় বেশি শত্রু বানিয়েছি আমি!’এখানেই না থেমে ‘কুইন’ ছবির নায়িকা আরও বলেন দেশের বিভিন্ন ব্যাপারে এবং নানান রাজনৈতিক বিষয়ে মন্তব্য করার জন্য প্রচুর ঝামেলা পোহাতে হয় তাঁকে। তাঁর নাম দায়ের করা হয়েছে একাধিক মামলা। এরপরই নাম না করে নিজের নিন্দুক ও সমালোচকদের উদ্দেশ্যে অভিনেত্রীর কটাক্ষ, ‘ অনেকেই আমার দিকে আঙ্গুল তুলেছিলেন। বলেছিলেন যে এসব আমি করি কেন? কেন বিভিন্ন বিষয়ে সর্দারি করি? এসব তো আমার কাজ নয়, ইত্যাদি ইত্যাদি। আজকে আশা করি এই জবাবটা তাঁরা পেয়ে গেলেন। আমার হয়ে পদ্মশ্রী সম্মানটাই তাঁদের সেই সমস্ত প্রশ্নের জবাব দিল। আশা করি এই সম্মান তাঁদের সবার মুখ বন্ধ করবে!’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category