আজ ২৭শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সময় : সকাল ৭:৪১

বার : সোমবার

ঋতু : গ্রীষ্মকাল

গ্রাম্য মাতব্বরদের ইন্ধন,বানিয়াচংয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী আহত। বসতঘর ভেঙ্গে দেওয়ায় খোলা আকাশের নীচে মানবেতর জীবনযাপন।

বানিয়াচং(হবিগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলায় গ্রাম্য মাতব্বরদের ইন্ধনে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় এক নারী আহত হয়েছেন। ভূক্তভোগী পরিবারের বসতঘর ভেঙে দেওয়ায় নারী-শিশু ও বৃদ্ধ লোকদের নিয়ে খোলা আকাশের নীচে মানবেতর জীবন-যাপনে বাধ্য করা হ”েছ অসহায় পরিবারটিকে।
হাওরের জমিতে থাকা পাকা ধান কাটতে দেওয়া হবেনা মর্মে গ্রাম্য মাতব্বরদের হুমকিতে দিশেহারা পরিবারটি ভয়ে চুপসে গেছে।
এ ব্যাপারে ভূক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করে প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা কামনা করা হয়েছে।
১৮এপ্রিল রবিবার বানিয়াচং প্রেসক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্টিত সংবাদ সম্মেলনে সভাতিত্ব করেন প্রেসক্লাব সভাপতি মোশাহেদ মিয়া।
সাধারন সম্পাদক খলিলুর রহমানের সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন আলকাছ মিয়া।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়,উপজেলার ৪ নম্বর দক্ষিন-পশ্চিম ইউনিয়নের প্রথমরেখ গ্রামের সুদিন উল্লার সাথে সৎভাই লোকমান মিয়ার জমি সংক্রান্ত ভাগবাটোয়ারা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে।
এ ব্যাপারে প্রথমরেখ গ্রামের গ্রাম্য বিচার-শালিশে সুদিন উল্লার বিরোদ্ধে একতরফা ও পক্ষপাতমূলক বিচারের রায় প্রদান করায় তিনি পক্ষপাতমূলক শালিশের রায় ভেবে দেখবেন বলে জানান। সুদিন উল্লার এরকম জবাব শুনে প্রথমরেখ গ্রামের কতিপয় মাতব্বর লোকমান মিয়াকে ইন্ধন দিয়ে সুদিন উল্লার বসত ঘরে হামলা করেছেন বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

১৭এপ্রিল শনিবার বিকাল ৫টায় প্রথমরেখ গ্রামের সুদিন উল্লার বসতবাড়িতে হামলা চালায় লোকমান মিয়া(৪০)র নেতৃত্বে আবু ছালেক(১৯),শহীদ মিয়া(৪৫),ইমরান মিয়া(৩৫) সহ একদল সন্ত্রাসী বাহিনী।
এ সময় বাধা দেওয়ায় সুদিন উল্লার স্ত্রী কাজল তারা(৪৫) কে শ্লীতাহানি করা হয় ও মারপিট করে জখম করা হয়েছে।
এছাড়াও সুদিন উল্লার ঘরে রক্ষিত নগদ টাকা-স্মর্ণালঙ্ক্ষার লুটপাট ও মালামাল ভাংচুর ও ঘর ভাংগার কারনে প্রায় ৬ থেকে ৭ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি করা হয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবী করা হয়েছে।
ওই দিন হামলার পর লোকমান মিয়া ভূক্তভোগীর বাড়িতে তার লোকজন নিয়ে পুনরায় এসে হুমকি দিয়ে শাষিয়ে যায় যে, তাদের বিরোদ্ধে মামলা বা কোন প্রতিকার নিতে চাইলে হাওরের ধানের জমি আর কাটতে দেওয়া হবেনা বলে ও হুমকি দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও ওই পরিবারের ফয়সল মিয়াকে মহল্লার রাস্তা দিয়ে ট্রলি নিয়ে চলাচল করতে দেওয়া হবেনা বলেও জানানো হয়েছে। ভূক্তভোগী পরিবরটির আশ্রয়দাতা একই মহল্লার মৃত মজিদ উল্লার পুত্র ছবিল মিয়া সহ পরিবারের সদস্যরা বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়েছে।
এ বিষয়ে ভূক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে প্রতিকার চেয়ে ইতিমধ্যে বানিয়াচং থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা কামনা করেছেন ভ’ক্তভোগী পরিবার

(সংবাদ সম্মেলন)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category