আজ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সময় : সকাল ৯:২৫

বার : বৃহস্পতিবার

ঋতু : হেমন্তকাল

ভোটাধিকারের দাবিতে ৪৯ দিনে ধরে হাঁটছেন হানিফ বাংলাদেশী

হবিগঞ্জ বাহুবল প্রতিনিধিঃ

 

ভোটাধিকারের দাবিতে ৪৯ দিন ধরে হাঁটছেন হানিফ বাংলাদেশি। “গণতন্ত্রের অভিযাত্রা March for Democracy” ভোটাধিকার চাই, কার্যকর গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ চাই’ শ্লোগানে অভিযাত্রার ৪৯তম দিনে বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০ টায় সিলেট জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ও প্রেসক্লাবসহ শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করেছেন হানিফ বাংলাদেশী।ভোটাধিকারের দাবিতে ৪৯ দিনে ধরে হাঁটছেন হানিফ বাংলাদেশী

প্রদক্ষিণকালে তিনি সর্বস্তরের মানুষের কাছে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করেন, সাধারণ মানুষের ব্যাপক সাড়া লক্ষ্য করা যায়। আগামীকাল তিনি সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবসহ শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করবেন।
কর্মসূচি সম্পর্কে সিলেট নিউজ 24 কে ‘হানিফ বাংলাদেশী’ বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছর ধরে সব শাসকদের দ্বারা জনগণের ভোটাধিকার কম বেশি লুণ্ঠিত হয়েছে, গণতন্ত্র, বাকস্বাধীনতা সংকুচিত হয়েছে। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তিতে জনগণের প্রত্যাশা, ভোটাধিকার ও কার্যকর গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ। সংবিধান মতে রাষ্ট্রের মালিক জনগণ আর রাষ্ট্রের উপর জনগণের মালিকানা প্রতিষ্ঠার প্রথম শর্ত ভোটাধিকার, যাহা ৫০ বছর ধরে লুণ্ঠিত হচ্ছে। জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করার ক্ষমতা জনগণের হাতে থাকলে অন্যায় দীর্ঘায়িত হয় না।

তিনি আরও বলেন, এখন জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করার ক্ষমতা জনগণের হাতে নেই, সেকারণে দুর্নীতি দুর্বৃত্তায়ন মাথা নাড়া দিয়ে উঠেছে। এখন কাঙ্খিত সে ভোটাধিকার, কার্যকর গণতন্ত্রের দাবি নিয়ে দেশব্যাপী গণস্বাক্ষর কর্মসূচি দেশের প্রতিটি থানা শহর ও জেলা শহর প্রদক্ষিণ করে আগামী ২৬ শে মার্চ তেঁতুলিয়ায় গিয়ে গণতন্ত্রের অভিযাত্রা March for Democracy সমাপ্ত করা হবে।
এর আগেও ২০১৯ সালের ১২ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিল ভোটাধিকারের দাবিতে টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া পদযাত্রা করেন। একই বছর ১৪ মে নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগের দাবিতে পঁচা আপেল নিয়ে প্রতিবাদ করেছেন। ২০ সেপ্টেম্বর থেকে ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত দুর্নীতি বন্ধের জন্য ৬৪ জেলার ডিসিকে স্বারকলিপি দিয়েছেন এবং দুর্নীতিবাজদের উদেশ্যে জেলায় জেলায় লালকার্ড প্রদর্শন করেছেন। ২০২০ সালের ১ অক্টোবর থেকে ২০ অক্টোবর প্রতিকী লাশ নিয়ে ঢাকা থেকে কুড়িগ্রামের অনন্তপুর সীমান্ত অভিমুখে পায়ে হেঁটে সীমান্ত হত্যা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন। চলমান কর্মসূচিতে দেশবাসী ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছেন এবং দেশের সকল সচেতন নাগরিক সহ ঘুমন্ত তরুন ও যুবকদের জেগে উঠার অনুরোধ করেছেন। আর সেই “ঘুম” হলো,সবকিছু দেখেও, না দেখার ভান করা,চুপ থাকা,নিরবে মাথা নীচু করে আশেপাশের কতিপয় সমাজপতিদের দূর্নীতির প্রতিবাদ না করা। “ঘুমন্ত যুবক জেগে উঠো,দেশের গনতন্ত্র ফিরিয়ে আনো”।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category