আজ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সময় : রাত ৩:০৮

বার : সোমবার

ঋতু : শরৎকাল

ধর্মপাশায় জব্দকৃত ড্রেজার মেশিন দিয়ে ফের অবৈধভাবে বালু উত্তোলন শুরু

 

ধর্মপাশা প্রতিনিধি

সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার বংশীকুণ্ডা দক্ষিণ ইউনিয়নের মনাই নদে অবৈধ ভাবে খনন যন্ত্র (ড্রেজার মেশিন) দিয়ে বালু উত্তোলন কাজ টানা ১৯ঘন্টা বন্ধ থাকার পর গতকাল গতকাল বুধবার সসকাল সাড়ে ছয়টার দিকে জব্দকৃত সেই ড্রেজার মেশিন দিয়ে সেখানে বালু উত্তোল কাজ শুরু হয়েছে। গত মমঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে মনাই নদে অভিযান চালিয়ে একটি খননযন্ত্র (ড্রেজার মেশিন) জব্দ করে ভ্রম্যমাণ আদালত। পরে তা স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান আজিম মাহমুদের জিম্মায় রাখা হয়। এ ছাড়া ঘটনাস্থল থেকে ড্রেজার মেশিনের মালিক একই ইউনিয়নের বংশীকুণ্ডা গ্রামের বাসিন্দা সাজু মিয়া (৩৫)কে আটক করে মধ্যনগর থানায় নিয়ে আসা হয়। ভবিষ্যতে এমন কাজ করবেন না বলে লিখিতভাবে অঙ্গীকার করে ওইদিন বিকেল সাড়ে চারটার দিকে সাজু সেথান থেকে মুক্তি পান। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)মো.মুনতাসির হাসান মধ্যনগর থানা পুলিশের সহায়তায় এই অভিযান পরিচালনা করেন। জব্দ করা ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনন কাজ শুরু হওয়ায় এলাকার মানুষজনদের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও হতাশা দেখা দিয়েছে।

উপজেলা প্রশাসন ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে,উপজেলার বংশীকুণ্ডা দক্ষিণ ইউনিয়নের বংশীকুণ্ডা বাজারের দক্ষিণ পাশে মনাই নদীটির অবস্থান। প্রায় দুইমাস ধরে স্থানীয় দুজন প্রভাবশালী ব্যক্তি মিলে সেখানে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে লোকজন নিয়োজিত করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন তুলে নদী সংলগ্ন জমিতে ভরাট করে বসতভিটে তৈরি করাসহ তা অন্যত্র বিক্রি করে আসছিলেন।এতে করে নদী সংলগ্ন ফসলি জমির ক্ষতি হচ্ছিল। ভূক্তভোগী দুজন কৃষক গত ৩০জুলাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে এ নিয়ে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগ পেয়ে গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে মধ্যনগর থানা পুলিশ নিয়ে ইউএনও উপজেলার বংশীকুণ্ডা বাজারের দক্ষিণ পাশে থাকা মনাই নদীতে অভিযানে গিয়ে অবৈধভাবে নদীতে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলনের সত্যতা পান।এ সময় সেখানে থাকা ড্রেজারের মালিক সাজু মিয়া (৩৫)আটক করা হয়। এ ছাড়া নদীতে থাকা ড্রেজার মেশিনটি জব্দ করে তা বংশীকুণ্ডা দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি)চেয়ারম্যান আজিম মাহমুদের জিম্মায় রাখা হয়। আর সাজুকে মধ্যনগর থানায় নিয়ে আসা হয়। ভবিষ্যতে আর এমন কাজ করবে না বলে লিখিতভাবে অঙ্গীকার করলে সাজু সেখান থেকে মুক্তি পান।
স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, অবৈধভাবে মনাই নদ থেকে বালু উত্তোলনের দায়ে ওই নদী থেকে একটি ড্রেজার মেশিন মঙ্গলবার সকালে ইউএনও স্যার জব্দ করেছিলেন।১৯ঘন্টা বন্ধ থাকার পর জব্দ করা সেই ড্রেজার মেশিনটি দিয়ে আজ সকাল সাড়ে ছয়টা থেকে আবারও ওই নদীতে বালু উত্তোল কাজ শুরু হয়েছে। প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে এমন অনৈতিক কাজ কীভাবে করা হচ্ছে তা আমরা বুঝে উঠতে পারছি না। উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে সুদৃষ্টি দেওয়া প্রয়োজন।

ড্রেজার মেশিনের মালিক সাজু মিয়ার মুঠোফোনটি বন্ধ থাকায় তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।
বংশীকুণ্ডা দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি)চেয়ারম্যান আজিম মাহমুদ বলেন, আমি জরুরি কাজে মঙ্গলবার বিকেলে সুনামগঞ্জ জেলা শহরে চলে আসছি। জব্দ করা ড্রেজার মেশিনটি আমার জিম্মায় রয়েছে।সেই মেশিনটি দিয়ে বালু উত্তোলন করার খবরটি আমাকে কেউ জানায়নি।আমি লোকজন দিয়ে নদী থেকে ড্রেজার মেশিনটি উঠিয়ে নিয়ে দ্রুত এটি আমাদের ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের একটি কক্ষে নেওয়ার ব্যবস্থা করব।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)মো.মুনতাসির হাসান বলেন ,জব্দ করা ড্রেজার মেশিনটি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের জিম্মায় রাখা হয়েছিল। জব্দ করা মেশিন দিয়ে ওই নদীতে বালু উত্তোলনের সত্যতা পাওয়া গেলে খোঁজ নিয়ে এ ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

(এম এইচ লিপু মজুমদার)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category