আজ ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সময় : সকাল ১০:১৫

বার : সোমবার

ঋতু : শীতকাল

জিয়াউল হক মিন্টুর স্বেচ্ছায় পদত্যাগ। ফুলের মালায় সিক্ত করলো পৌরবাসী

 

বরিশাল জেলা প্রতিনিধি :

জিয়াউল হক মিন্টুর স্বেচ্ছায় পদত্যাগে আজ বানারীপাড়া উপজেলা কম্প্লেক্সের সামনে সলিয়াবাকপুর ইউনিয়ন বাসীর কান্নায় এক হ্দয় বিদারকের পরিবেশ সৃষ্টি হয়। পাশাপাশি বানারীপাড়া পৌরবাসী ফুলের মালা পড়িয়ে বরণ করে নিল
বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার সলিয়াবাকপুর ইউনিয়ন পরিষদের ২ বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউল হক মিন্টুকে। আজ ৩ জানুয়ারি সকাল ১০ টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রিপন কুমার সাহার কাছে তিনি তার চেয়ারম্যান পদ থেকে স্বেচ্ছায় অব্যহতি নেয়া পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। এ সময় তার সাথে ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। তিনি পদত্যাগপত্র জমা দিতে আসার আগেই উপজেলা পরিষদের পূর্বপাশে সলিয়াবাকপুর ইউনিয়ন পরিষদের শত শত নারী পুরুষ অবস্থান নেন। পদত্যাগপত্র জমা দিয়ে নিচে নামার পরেই সেখানে এক হৃদয় বিধারক অবস্থার সৃষ্টি হয়, আবেক আপ্লুত হয়ে পড়েন ইউনিয়নের বাসিন্দারা। অশ্রু সজল নয়নে প্রিয় নেতাকে বিদায় জানিয়ে তারা পুনরায় ইউনিয়নে ফিরে যান। অপরদিকে পশ্চিম প্রান্তে ফুল ও ফুলের মালা নিয়ে ঝরো হয়েছিলো পৌরসভার সহস্রাধিক নারী পুরুষ। ইউনিয়ন বাসিকে বিদায় জানিয়ে পশ্চিম প্রান্তে আসতেই তাকে মালা দিয়ে বরণ করেন পৌরবাসি। পরে তার হাটার পথে দীর্ঘ সময় দরে ফুল ছিটিয়ে পৌরসভার নির্বাচনে নৌকার মেয়র প্রার্থী হিসেবে মিন্টু ভাইকে দেখতে চাই এই শ্লোগানে শ্লোগানে একটি শোডাউন (মিছিলি) শেখ মুজিব সড়ক প্রদক্ষিণ করে বড় খেয়াঘাট তার নিজস্ব কার্যালয়ে এসে শেষ হয়। স্বতস্ফুর্তভাবে নারী পুরুষের অংশগ্রহনে জিয়াউল হক মিন্টু পৌরবাসীর গ্রহনের মধ্য দিয়ে নতুন এক অধ্যায়ের সৃষ্টি হল। মনের প্রকৃত ভালোবাসা এবং জনসাধারনের পাশে থাকার মন মানষিকতা থাকলে একজন মানুষ অতি অল্প সময়ে (মাত্র ৩ মাস তের দিনে ) জনসাধারনের অন্তঃস্থলে পৌছতে পারে তার জলন্ত প্রমান জিয়াউল হক মিন্টু। আগষ্টের ২০ তারিখ জিয়াউল হক মিন্টু পৌরসভার মেয়র পদে নির্বাচন করার ঘোষনা দিয়ে সাধারন জনতার পাশে দাড়ান। এই অল্প সময়ের মধ্যে তিনি তার কর্মস্পৃহা, তার কর্মদক্ষতা জন প্রতিনিধিত্ব কি তা জনসাধারনকে বুঝাতে সক্ষম হয়েছেন। জনসাধারনের পাশে থাকার দৃঢ় সংকল্প নিয়ে আজ তিনি তার প্রিয় পরিষদ ০৫ নং সলিয়াবাকপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদ হতে স্বেচ্ছায় অব্যহতি নেন। তার পদত্যাগের খবরে পৌরবাসী তাকে গ্রহন করতে উপজেলা চত্ত্বরে জমায়েত হয়ে ফুলে ফুলে আচ্ছন্ন করে শ্লোগানে নিজ কার্যালয়ে নিয়ে আসেন। সেখানে সংক্ষিপ্ত এক পথ সভায় জিয়াউল হক মিন্টু বলেন পৌরসভার খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ তার সাথে আছেন। এছাড়াও পৌরসভার কিশোর-যুবক ও জাতির বীর সন্তান মুক্তিযোদ্ধারাও তার সাথে আছেন। ছাত্র জীবন থেকে দেশ ও আওয়ামী লীগের ক্রান্তিলগ্নে রাজপথে থেকে স্বাধীনতার চেতনা বাস্তবায়নে লড়াই-সংগ্রাম করেছেন। যার ফল স্বরূপ তাকে পর্যায়ক্রমে সলিয়াবাকপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সর্বপরি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধারা দাবী তোলেন এবারের পৌরসভা নির্বাচনে নৌকার মাঝি যেন জনস্রোতের
অনুকুলে দেয়া হয়। পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হাবিবুর রহমান বলেন জিয়াউল হক মিন্টু রাজনীতির এক আশ্চর্য্য পুরুষ আবার রাজনীতির যাদুকরও। কেননা অল্প দিনের ব্যবধানে পৌরবাসীর হৃদয়ে যে ভাবে স্থান করে নিয়েছেন তা বানারীপাড়ার ইতিহাসে কোন এলাকায় হয়েছে কিনা তার জানা নই। এ সময় পৌর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মাহফুজুল হক মাসুম সহ বিভিন্ন পর্যায়ের আওয়া লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও মহিলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন। পরে জিয়াউল হক মিন্টু পৌর শহরের থানা সড়কে গনসংযোগ করেন। মহামারি করোনায় এই বিশাল সমাবেশ ও শোডাউনে শতভাগ মাস্ক পরিধানের নিশ্চয়তার মধ্য দিয়ে উপস্থিত জনতা জনসেচনতার প্রমান দিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category