আজ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সময় : বিকাল ৪:১৩

বার : মঙ্গলবার

ঋতু : হেমন্তকাল

বানিয়াচঙ্গে সন্ধ্যা রাতে খালি বাসায় ৬৫ বছরের মহিলা খুন

 

রিতেষ কুমার বৈষ্ণব,হবিগঞ্জ  প্রতিনিধিঃ

 

হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলায় আজ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ রোজ শুক্রবার সন্ধ্যা আনুমানিক ৭ ঘটিকায় জাকিরা খাতুন নামের ৬৫ বছরের এক মহিলা খুন হয়েছে।

নিহত জাকিরা খাতুন (৬৫) উপজেলার ৩নং ইউনিয়নের চৌধুরী পাড়া গ্রামের মৃত আঃ হান্নান ঠাকুরের স্ত্রী।

মৃত আব্দুল হান্নান ঠাকুরের ছেলে কিবরিয়া ঠাকুর (জুবেল) এর সাথে কথা বললে তিনি জানান – তার মা জাকিরা খাতুন এবং সে ছাড়া আর কেউ থাকেন না, মাকে বাসায় একা রেখে আজ সন্ধ্যা আনুমানিক ৬ ঘটিকার সময় মায়ের জন্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র কিনে আনতে স্থানীয় নতুন বাজারে যান এবং মাকে বলে যান অপরিচিত কেউ দরজা খুলতে বললে যেন দরজা খুলে না দেন।
প্রায় ঘন্টা খানেক পরে বাজার থেকে ফিরে এসে দরজা খোলার জন্য মাকে ডাকলে ঘরের ভিতর থেকে কোন সাড়া না পেয়ে দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে মায়ের রক্তাক্ত নিথর দেহ মাটিতে পরে থাকতে দেখে চিৎকার করতে থাকেন এবং এলাকার লোকজন কে ডাকতে থাকেন।

বাড়িটি আয়তনে অনেক বড় হওয়ায় এবং জন শূন্য হওয়ায় প্রথমে কেউ শুনতে পায়নি, অনেক চিৎকার করার পরেও কেউ এগিয়ে না আসলে সে বাহিরে এসে প্রতিবেশীদের কে বিষয় টি জানালে তারা এসে জাকিরা খাতুনের রক্তাক্ত নিথর দেহ মাটিতে পরে থাকতে দেখেন
এবং পেছনের দরজা খোলা থাকতে দেখেন।
এসময় বিছানা পত্র সহ ঘরের সকল আসবাবপত্র অগোছালো ভাবে দেখতে পান।
নিহতের মুখে এবং কপালে বেশ কয়েকটি আঘাত রয়েছে একটি ধারালো ছুরির পুরোটাই মাথায় ঢুকানো রয়েছে ।

বিষয় টি থানা প্রশাসন কে অবগত করা হলে তাৎক্ষণিক বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ এমরান হোসেন এর নেতৃত্বে তদন্ত অসি প্রজিত কুমার দাস সহ একদল পুলিশ ঘটনা স্থলে উপস্থিত হয়ে ঘটনার তদন্ত কাজ শুরু করেন।বানিয়াচঙ্গে সন্ধ্যা রাতে খালি বাসায় ৬৫ বছরের মহিলা খুন।।

পরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ মোঃ সেলিম সহ হবিগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা শাখার একদল পুলিশ ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেন।

এই বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বানিয়াচং সার্কেল শেখ মোঃ সেলিম’র সাথে কথা বললে তিনি জানান এই হত্যা কান্ডটি বিশেষ গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছে, আমাদের বানিয়াচং থানা প্রশাসন সহ একদল গোয়েন্দা পুলিশ নিয়োজিত রয়েছে,খুব শীগ্রই আমরা প্রকৃত হত্যা কারীকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনতে সক্ষম হব। রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category